নারদ কাণ্ডে আদালতের দারস্ত হয়ে মুখ থুবড়ে পড়লেন তৃণমূলের আরামবাগের সাংসদ।




নারদকাণ্ডে হাই কোর্টের নির্দেশ পর থেকেই তৃণমূলের মধ্যে শুরু হয় তোড়জোড়। একের পর এক নেতা মন্ত্রীরা নারদকাণ্ড থেকে বাঁচতে দারস্ত হয় মহামান্য আদালতের। তাতে খুব একটা লাভ হয়নি তাঁদের, প্রত্যেকবারই তাঁরা আদালতের রায়ে আশা হত হন । তবুও তাঁরা আশা না ছেড়ে বার বার গেছে আদালতে।
এবার, সিবিআইয়ের এফআইআর পর দল কী করবে সেদিকে না তাকিয়েই আদালতে গেলেন তৃণমূলের আরামবাদের সাংসদ অপরূপা পোদ্দার। তাঁর আবেদন, সিবিআইয়ের এফআইআর থেকে তাঁর নাম বাদ দেওয়া হোক। সেই আবেদনের শুনানি আজ মুলতুবি রাখল হাইকোর্ট।
কিন্তু, অপরূপার আইনজীবীর বক্তব্য শুনে বিচারপতি জয়মাল্য বাগচি বলেন, তদন্ত যেমন চলছে তেমনি চলুক। তাতে হস্তক্ষেপ করার কোনও প্রয়োজন নেই। সিবিআইয়ের তদন্ত একেবারেই প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।
এরপরই রাজনৈতিক মহলে কানাখুশ শোনা যাচ্ছে, তাহলে কি তৃণমূলের নেতা মন্ত্রিরা বুঝে গেছেন জেল তাঁদের অনিবার্য।






1 Comment

  1. সারদা-নারদা মামলাগুলি বহু দিন চলবে এবং অবশেষে একদিন ধামাচাপা পড়বে। যতদিন তা না হয়, ততদিন অভিযুক্তরা মাঝে মাঝেই জেরার সম্মুখিন হয়ে বেইজ্জত হবেন। তার বেশী কিছুই হবে না। অতএব,নেতা-নেতৃগণ মাভৈ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*