Editorial

সবং মুকুল এবং অন্তর্ঘাত!! পোস্ট এডিট।

নজরবন্দি ব্যুরোঃ সবং উপনির্বাচন তৃণমূল হাসতে হাসতে জিতেছে এটাই লেখা থাকবে পরিসংখ্যানে৷


বিখ্যাত ক্রিকেট লিখিয়ে নেভিল কার্ডাস স্কোর বোর্ডকে গাধা বলতেন৷অর্থাৎ স্কোর বোর্ড সবসময় সামগ্রিক চিত্রের দর্পন হয়ে উঠতে পারে না৷যেমনটা হচ্ছেনা তৃণমূলের ক্ষেত্রেও৷সবং জিতেও তাই তৃণমূলের অন্দরে হাসি উধাও৷বরং জোরালো হচ্ছে অন্তর্ঘাতের তত্ত্ব৷তৃণমূল সুত্রে জোরালো খবর সবংয়ে ভোট চলাকালীন দলীয় এজেন্ট থেকে অনেক বুথ সভাপতি সামনে দলের দায়িত্ব সামলালেও আসলে তারা পুরোপুরি বিজেপির হয়ে ভোটের ময়দানে কাজ করেছেন৷বিজেপির ভোট কিভাবে বাড়ানো যায় সেই দায়িত্ব পালন করেছেন মুন্সিয়ানার সঙ্গে৷অর্থাৎ বিজেপির সঙ্গে তলে তলে যোগাযোগ রেখেছিলেন সবংয়ের অনেক এলাকার বুথ সভাপতি থেকে নির্বাচনী এজেন্টরা৷এই অন্তর্ঘাতের তত্ত্ব উড়িয়ে দিতে পারছেন না তৃণমূল শিবিরও৷তাদের পোষ্টমর্টেমে উঠে এসেছে চমকে ওঠার মত তথ্য৷বহু এলাকায় প্রথম সারির নেতাদের পাশাপাশি নীচুতলার তৃণমূল কর্মীরাও প্রায় খুল্লামখুল্লা বিজেপির ভোট বৃদ্ধিতে পূর্ন মদত দিয়েছেন৷বুথওয়ারি ফলাফল বলছে তৃণমূল প্রভাবিত সবংয়ের বেশকিছু এলাকায় রাতারাতি পদ্ম ফুটেছে৷দলের অন্দরের খবর সেই এলাকাগুলি আদি তৃণমূলীদের নিয়ন্ত্রনাধীন৷যারা নব্য তৃণমূলীদের দাপটে কোনঠাসা৷তবে ম্যাজিকটা বিজেপি সর্বত্র দেখাতে না পারলেও অন্তত ১১০-১২০টি বুথে তারা ম্যাজিক দেখিয়েছে৷তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের সন্দেহ দলের নেতা,কর্মীরা অন্তর্ঘাতে সামিল না হলে এভাবে বিজেপির ভোট ২০১৬ এর নির্বাচনের নিরিখে লাফিয়ে,লাফিয়ে বাড়ত না৷৷তবে সবংয়ে অন্তর্ঘাতে অনেকে মুকুল রায়ের লম্বা হাতের ম্যাজিক দেখতে পাচ্ছেন৷অধুনা রাজ্য রাজনীতির চানক্যের যে সাংগঠনিক দক্ষতা ও ক্যারিশমায় এতটুকু মরচে পরেনি তার প্রমান দিলেন তৃণমূল প্রভাবিত এলাকায় বিজেপির ভোট অনেকটা বাড়িয়ে৷রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে মুকুল ম্যাজিক সবংয়ে কাজ করেছে,আদি তৃণমূলীদের বড় অংশ সরাসরি অন্তর্ঘাতে সামিল হয়েছেন৷তারাই নিজেরা উদ্যোগী হয়ে বিজেপিকে ভোট দিতে প্রভাবিত করেছেন ভোটারদের৷রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের আরও আশংকা সবং মডেল যদি আগামী দিনে প্রয়োগ করতে সমর্থ হয় বিজেপি তাহলে বহু এলাকার রাজনৈতিক বিন্যাস বদলে যাবে৷আর মাত্র কয়েকমাস পরেই পঞ্চায়েত নির্বাচন,বহু এলাকায় আদি তৃণমূলীরা অন্তর্ঘাতে যে সামিল হবেন তার প্রমান দেখালো সবং,এমনটা যদি পঞ্চায়েত নির্বাচনে আরো বেশী মাত্রায় ঘটে,সেক্ষেত্রে তৃণমূলের দখলে থাকা বহু পঞ্চায়েত বিজেপির দখলে গেলে অবাক হবেন না রাজ্যের মানুষ৷

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *