Editorial

গুজরাট নির্বাচন ও বেশ কিছু অদ্ভুত সম্ভাবনা!! সম্পাদকের কলমে।

অর্ক সানা, সম্পাদকঃ গুজরাট নির্বাচন হয়ে গেল, এবার ফলের প্রতীক্ষা। আর একটা বেল পাকলে কাকের কি গোছের প্রশ্ন গুজরাট নির্বাচনের সঙ্গে বাংলার সম্পর্ক কি? আছে সম্পর্ক আছে। কিন্তু তার আগে আসুন কংগ্রেসের অবস্থান টা দেখে নিই।


কংগ্রেস নাকি ক্ষমতা হাতে পাওয়ার জন্যে যখন তখন যার সাথে ইচ্ছা জোট করতে পারে! তাই এই নির্বাচনে অল্পেশ কে দলে নেওয়া, হার্দিক প্যাটেল কে উপমুখ্যমন্ত্রীর “টোপ” দিয়ে সঙ্গে রাখা। জিগনেশ যে কিনা কংগ্রেসের সিম্বলটাকেই পছন্দ করেনা তার সাথেও সমঝোতায় আসা!! সবথেকে বড় কথা জেতা আসন বাডগ্রামে জিগনেশ মেবানি কে সমর্থন করা প্রমাণ করে যে কংগ্রেস জেতা বা ক্ষমতায় আসা ছাড়া আর কিছু ভাবতে পারছে না। কারন রাহুল বনাম মোদী লড়াই হলে মোদী হেসে হেসে রাহুল কে ৫ গোল দেবে! অপ্রিয় সোজা কথায় গান্ধী পরিবারের স্ট্যাম্প ছাড়া রাহুল গান্ধীর গ্রহণযোগ্যতা প্রায় শূন্য বলে কানাঘুসো রয়েছে দলের মধ্যেই। তার থেকে কানহাইয়া কুমারের জনপ্রিয়তা বা গ্রহণযোগ্যতা অনেক বেশি অন্তত বিজেপি বিরোধিতায়। ধরা যাক কংগ্রেস গুজরাটে ক্ষমতায় এল তখন হার্দিক প্যাটেলের মত নেতা যদি উপ-র বদলে শুধু মুখ্যমন্ত্রী হতে চায় তখন কী হবে তা অবশ্য জানা নেই কংগ্রেসের!
অন্যদিকে বিজেপি, ইচ্ছে ১৫০+ আসন নিয়ে ক্ষমতায় আসা। কিন্তু ইচ্ছে আর বাস্তবের তফাত আছে। এখন ১৫০ দূরের কথা বিজেপি ৯২ টা আসন পেলেও বেঁচে যায় এমন অবস্থা! কারন? খুব সহজ ৬ জন মুখ্যমন্ত্রী, ১৯ জন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেশের বিজেপি সভাপতি এবং প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং যে ভাবে মাঠে নামলেন তা দেখলে খুব অরাজনৈতিক মানুষেরও বুঝতে অসুবিধা হওয়ার কথা নয় যে বিজেপি চাপে রয়েছে।
যদিও সবকটা অপিনিওন পোলে দেখা গেছে বিজেপি জিতবে। কিন্তু চাপ যে আছেই তা অস্বীকার করার উপায় আছে কি? আপাতত ৫০% – ৫০% পজিশন।
তবে আমার ব্যাক্তিগত ধারনা ১০৫-১১০ এর মতো আসন নিয়ে সরকার গড়বে বিজেপি। কংগ্রেস আসন বাড়াতে পারলেও জিতবে না। মধ্য,উত্তর ও দক্ষিন গুজরাটে বিজেপি ভালভাবে জিতবে কিন্তু সৌরাষ্ট্রে জিতবে কংগ্রেস।
কিন্তু ধরা যাক সার্বিক ভাবে কংগ্রেস জিতে গেল!! কি হবে তাহলে? সারা দেশের অ-বিজেপি দলগুলো ছুটবে কংগ্রেসের সাথে জোট করার জন্যে। এ রাজ্যে জোট হবে তৃণমূলের সাথে, অধীর বাবু রাগ করে হয়ত চলেই যেতে পারে বিজেপি-তে কারন তৃণমূলের সাথে জোট তিনি বা মান্নান মানবেন না আর রাহুল – সোনিয়া এদের কথা শুনবেন না! আর অভিমানীদের বিজেপির ছাতার তলায় আনার জন্যে মুকুল রায় তো রয়েছেনই!
আর বাম বা সিপিআইএম? বর্তমান সময়ে যা পরিস্থিতি এ রাজ্যে লোকসভা নির্বাচনে ১ টা আসন পেলেই অনেক!!! বিজেপি নিশ্চিত ভাবেই রাজ্যে বিরোধী বা নাম্বার টু যায়গা পাবে কারন কংগ্রেস তখন নিয়ন্ত্রন করবেন মমতা। বাম নিচুতলা কিছু না পেয়ে বিজেপির দিকে পা বাড়াবে, ভরসা মুকুল।
প্রকাশ কারাত রা যতদিন সিপিআইএম এর নিয়ন্ত্রক ততদিন সিপিআইএম এর পালে জনগনের হাওয়া লাগার যথেষ্ট প্রতিকুলতা রয়েছে। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী প্রকাশ কারাট দলের অন্দরে বার্তা দিয়েছেন কংগ্রেসের সাথে জোট করা চলবে না কংগ্রেস বুর্জোয়াদের দল!!! অঞ্চলিক দলের সাথে জোট করে বিজেপি-র বিরুদ্ধে লড়াই করতে হবে। পশ্চিমবঙ্গে জোট করার মত আঞ্চলিক দল কে? ২০২১ এ এমন হবেনা তো রাজ্যে ক্ষমতার কাছাকাছি গিয়ে কয়েকটা আসনের জন্যে আটকে গেল তৃণমূল, সেটা যোগান দিয়ে বাইরে থেকে সমর্থন দিল বামফ্রন্ট?
অন্যদিকে ধরা যাক কোনমতে গুজরাত দখল করল বিজেপি সেক্ষেত্রেও এই সমীকরণ বদলে যাওয়ার কোন কারন নেই। কিন্তু বিজেপি যদি ১২০+ আসন নিয়ে জিতে যায় তাহলে রাহুলের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ অন্ধকারের পাশাপাশি এ রাজ্যে বিজেপি-র নাম্বার ২ যায়গা তে পাকাপাকিভাবে পৌঁছে যাওয়া সময়ের অপেক্ষা!! ২০২১ বাম-তৃণমূল কাছাকাছি আসার সম্ভাবনাটাও বেড়ে যাবে।
গল্প হলেও সত্যি হতেও পারে, আপাতত সব চরিত্র কাল্পনিক!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *